দিল্লিতে প্রকাশ্য রাস্তায় ফটোগ্রাফার অঙ্কিত সাক্সেনাকে কুপিয়ে খুন

February 05, 2018


দিল্লিতে প্রকাশ্য রাস্তায় ফটোগ্রাফার অঙ্কিত সাক্সেনাকে কুপিয়ে খুন 

পয়লা ফেব্রুয়ারি ২০১৮, পশ্চিম দিল্লির খায়্যালা এলাকায় সন্ধ্যে ৮ টা নাগাদ ফটোগ্রাফার অঙ্কিত সাক্সেনাকে (২৩) খুন করা হয়। গত তিন বছর ধরে শাহজাদী (২০) নামে  ভিনধর্মের এক তরুণীর সঙ্গে প্রেম করতেন অঙ্কিত। মুসলিম মেয়েটির পরিবার এই ভিমধর্মের প্রেম কিছুতেই মেনে নেয়নি, কারণ অঙ্কিত ছিলেন হিন্দু। মেয়েটির পরিবার শাহজাদীকে অঙ্কিতের সাথে তার সম্পর্কের বিরুদ্ধে সতর্ক করে দিয়েছিল। ঘটনার দিন সন্ধেবেলাও দুজনের দেখা করার কথা ছিল। প্রেমিকার পরিবারের সদস্যরাই সেই সুযোগ নিয়ে অঙ্কিতকে নৃশংসভাবে  কুপিয়ে খুন করে। এই খুনের ঘটনায় গোটা দেশজুড়ে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে।

ঘটনার দিন

ঘটনার দিন সন্ধ্যে ৮ টা নাগাদ পশ্চিম দিল্লির খায়্যালা এলাকায় রাস্তায় লাগানো সিসিটিভি ক্যামেরায় দেখা যায়, অঙ্কিত কালো লেদার জ্যাকেট পরে কারও সঙ্গে ফোনে কথা বলছেন। এর ঠিক ১০ মিনিটের মধ্যে, সেখান থেকেই সামান্য কিছু দূরে আঙ্কিত তার মুসলিম বান্ধবীর পরিবার দ্বারা আক্রান্ত হন। অঙ্কিতকে খুন করে তাঁরই প্রেমিকার মা, বাবা, কাকা এবং ছোট ভাই। 

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, শাহজাদীর বাবা একজন কসাইের কাজ করতেন এবং অঙ্কিতকে নৃশংসভাবে খুন করার সময় ছুরিকাঘাত করা হয় তার গলায়। এর ঠিক পূর্বমুহূর্তে অঙ্কিত সাক্সেনাকে মেয়েটির পরিবার তাদের দুজনের সম্পর্কের কথা নিয়ে খুব ঝামেলা করে। এরপর তার প্রেমিকার বাবা, কাকা, ১৪ বছর এর ভাই  অঙ্কিতকে মারধর করে।

অঙ্কিত তার মৃত্যুর পূর্বমুহূর্তে, তার বান্ধবী মাকে চিৎকার করে বলে, "আন্টি, আমি কিছুই করিনি। আমি তোমার মেয়েকে নিয়ে যাচ্ছি না, যাই হোক না কেন, আমি এখানেই আছি।" 

কিন্তু মুহূর্তের মধ্যে দেখা যায় অঙ্কিতের দেহ রাস্তায় পড়ে আছে এবং তার গলা চেরা। অঙ্কিতকে নৃশংসভাবে খুন করার অপরাধে মেয়েটির পরিবারের চারজনকেই (প্রেমিকার মা, বাবা, কাকা এবং ছোট ভাই) গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

যশপাল সাক্সেনা ঘটনা প্রসঙ্গে বলেছেন

অঙ্কিত সাক্সেনার বাবা যশপাল সাক্সেনা এই ঘটনা প্রসঙ্গে বলেছেন , "হ্যাঁ, যারা আমার ছেলেকে মেরেছে তারা ছিল মুসলিম ... কিন্তু প্রত্যেক মুসলিমকে এই জন্য দোষী করা যায় না। দয়া করে সাম্প্রদায়িক উত্তেজনা সৃস্টির জন্য আমাকে ব্যবহার করবেন না।“

তিনি আরো বলেন, আমার একটি ক্ষুদ্র আশা ছিল যে সে হয়তো তখনো জীবিত ছিল। কিন্তু ,ঘটনার সময় রাস্তায় অনেক মানুষজন থাকলেও কেউ সাহায্যের জন্য এগিয়ে আসেন নি।

যশপাল সাক্সেনা তাঁর ছেলের হত্যাকারীদের ফাঁসি চান।

ঘটনার পর থেকেই ওই এলাকার পরিস্থিতি উত্তপ্ত। কোনওরকমের অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে বিশাল পুলিশবাহিনী মোতায়েন রয়েছে এলাকায়।

দিল্লীর মাননীয় মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল মৃত অঙ্কিত সাক্সেনার বাড়িতে যান। তিনি তাঁদের প্রতিশ্রুতি দেন, দোষীদের বিরুদ্ধে উপযুক্ত ব্যবস্তা নেবে দিল্লী সরকার, দোষীরা যাতে চরম শাস্তি পায়।  



You Might Also Like

0 comments

Contact Form

Name

Email *

Message *

Like us on Facebook